মেয়েটা চকোলেট খেতে খুব পছন্দ করত। কিন্তু চাইলেই তো আর চকোলেট রাত-বিরাতে পাওয়া যায় না! হুট করে মাথায় ক্লিক করল “ কেমন হয় একটা চকোলেটের অনলাইন শপ থাকলে”। যেই ভাবা সেই কাজ ! খুলে ফেলল চকোলেট ওয়ার্ল্ড নামে অনলাইন শপটি। মাত্র এক বছর হতে না হতেই দুর্দান্তভাবে এগিয়ে যাচ্ছে বিজনেস, প্রচুর প্রচুর অর্ডার পাচ্ছে । চকোলেট ওয়ার্ল্ডের সেই পেছনের চকোলেট পছন্দ করা মিষ্টি মেয়ে প্রিয়াঙ্কা ইসলামের সঙ্গে ফেমিনিজমবাংলার আড্ডায় উঠে এলো চকোলেট বিজনেস নিয়ে যত কথা।

চকোলেট নিয়ে অনলাইন বিজনেস !!! কেন ?

চকলেট আমার খুব খুব খুউব প্রিয় একটা জিনিস। কেউ যদি বলত ভাতের বদলে চকলেট খান !!! যাই হোক, কাজের চাপে আর সময়ের অভাবে দোকানে যাওয়া হয়না, কিন্তু মনে মনে খুব ইচ্ছে করে কেউ যদি বাসায়/অফিসে চকলেট দিয়ে যেতো ! এই ভাবা থেকেই বিজনেস কন্সেপ্টটা মাথায় আসে।। যখন চাইবে তখন। রাত ১২টায় প্রিয় মানুষকে দিবেন? ওকে কল , ‘আস’ । জিএফ রাগ, এক্ষুনি চকলেট দিতে হবে ! কল “আস”।আমি শুরু করেছিলাম ফেব্রুয়ারী ২৩, ২০১৫ তে।

কোন নির্দিষ্ট দোকান থেকে কিনেন ? নাকি ঘুরে ঘুরে যেটা পছন্দ হয় ?

নির্দিষ্ট কোন দোকান থেকে প্রথমে কিনি নাই। ঘুরে ঘুরে কিনেছিলাম, ভারতে ঘুরতে গিয়েছিলাম। কোলকাতা থেকে চকলেট কিনে এনেছিলাম। এখন কিছু ফিক্সড শপ আছে। ওদের বলে দিলে পাঠিয়ে দেয় আমাকে। আমার বর্ডার থেকে ট্যাক্স পে করে ছাড়িয়ে আনতে হয়। এই কাজটা আমি আর আমার এক বন্ধু মিলে করি, একা যাওয়া পসিবল হয়না ।

choco

বিদেশী চকলেটের চাহিদা কি বেশী ? এটা কি খারাপ লাগে না, দেশি চকোলেট এখনও ওই মানের হয় নি ?

বিদেশী চকলেটের চাহিদাই বেশি। এর মধ্যে ইউকে, সুইডেন, আমেরিকা, থাইল্যান্ড, মালেশিয়া ও দুবাই এর চকলেট বেশি চায় মানুষ। এমনকি ভারতীয় চকলেটের চাহিদাও কম। খারাপ লাগে। খুব খারাপ লাগে। কতগুলো টাকা দিয়ে চকলেট আনি, ট্যাক্স দেই, অথচ চাইলেই এইমানের চকলেট বানানো যায় একটু চেষ্টা করলেই।

পার্থক্য কি ? দোকান থেকে কেনা আর অনলাইন শপ থেকে কেনা ?

অনলাইনে সুবিধা হলো ঘরে বসেই পছন্দের চকলেটটি পাওয়া যাবে যে কোন টাইমে। আর দাম নালাগের মাঝেই। কিছু চকলেট এর দাম মার্কেট প্রাইজের চেয়ে কমেই দেই। যেমন সিল্ক। এইটা বাইরে মুদি দোকানেই ২৮০। সুপার শপে ৩২০/৩৫০ করে। আমি দিচ্ছি ২৫০ টাকাতে । স্নিকার্স ৫০টাকা করে, বাইরে ট্যাগ লাগিয়ে ৬০টাকায় বিক্রি হয়। এইতো, এই জন্য অনেক ক্লায়েন্ট বাঁধা হয়ে গেছে আমার। দোকান থেকে না কিনে আমাকেই অর্ডার করে।

ডেলিভারি চার্জ কেমন ঢাকা আর ঢাকার বাইরে ?

আমার বাসা মিরপুরে, তাই মিরপুরে ফ্রী হোম ডেলিভ্যারী দেই, পিক আপ পয়েন্ট ও মিরপুরে। এছাড়া ঢাকা এর মধ্যে ৬০টাকা, ঢাকা এর বাইরে ১০০টাকা কুরিয়ার ফি ।

choco 1

 

কোন ফ্রেন্ডকে সারপ্রাইজ দিতে চাইলে সে বাসায় কি পৌঁছে যায় চকলেট ?

সারপ্রাইজই বেশি দেয়া হয়। রাত ১২টায় জন্মদিনের, এনিভার্সারির ডেলিভ্যারী খুব হয়। সরাসরি পৌঁছে দেই আমরা, ক্লায়েন্ট বিকাশে পে করে দেয়। বিদেশ থেকেও অর্ডার আসে। ওনারা মানিগ্রাম এর মাধ্যমে টাকা পাঠায়, আমরা তাদের গিফট পৌঁছে দেই। নরমাল ব্যাগ আছে আমাদের, ওইগুলাতে দিলে কোন প্যাকিং চার্জ নেই। কিন্তু অনেকে ডালা সাজিয়ে ডেকোরেট করে দিতে বলে, সেক্ষেত্রে সাজানো অনুযায়ী দাম হয়। ২০০/৩০০ এমন।

বিজনেস করে কি মনে হচ্ছে অনলাইন শপের সঙ্গে কি দেশের মানুষ অভ্যস্ত ?

বিজনেস করে মনে হচ্ছে আমাদের মানুষ অবশ্যই অনলাইন শপের সাথে যুক্ত। নাহলে এতো ছোট একটা জিনিস এইখান থেকে কিনতো না ।

ফ্যামিলি আর বন্ধুদের সাপোর্ট কেমন ? কিরকম বাঁধা ফেস করেছেন ?

ফ্যামিলি আর বন্ধুদের সাপোর্ট অনেক বেশি। এই সাপোর্ট না পেলে আমার পক্ষে সম্ভব হতো। একজনের কথা উল্লেখ করতে চাই, সোহেল। ও যত ঝামেলাই হোক না কেনো রাতের ডেলিভারি গুলো করে দিয়েছে যা আমার পক্ষে পসিবল ছিলোনা।

choco 2

 

কিরকম বাঁধা ফেস করেছেন ?

বাঁধা মেইনলি আসে বর্ডার থেকে প্রোডাক্ট ছাড়ানোর সময়। বেশির ভাগ সময় ঘুষ চায় বর্ডারের লোকেরা, ট্যাক্স দিয়ে আনার পরও আটকে রাখে, ইচ্ছে করে ঘাটাঘাটি করে। অনেক চকলেট নষ্ট হয়ে যায়। এত্তো ঘাটায় তারা।

 

কাস্টমারদের নেগেটিভ ফিডব্যাক কি মন খারাপ করিয়ে দেয় ? পেয়েছেন এরকম কিছু ?

খুব মন খারাপ হয়। কেউ কেউ বলে দাম বেশি। চোরাই পথে আসা চকলেট গুলো যেগুলোর ডেট থাকে সে গুলোর সাথে আমার চকলেট গুলোর তুলনা দেয়। অথচ আমি আনি সব নতুন প্রোডাক্ট ১/২ বছর ভ্যালিড ডেট, সাথে ট্যাক্স। এইটা বুঝেনা। খুব বেশি নেগেটিভ ফিডব্যাক পাইনি এখনও।

আইডিয়া থাকতে অনেকেই সাহস করেনা উদ্যোক্তা হতে ? নারী উদ্যোক্তাদেরকে সেই বিষয়ে কিছু কথা

আমি সবার উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলতে চাই, একটু সাহস।  খালি একটু সাহসের প্রয়োজন। কত কত জিনিস আছে যেগুলো নিয়ে উদ্যোক্তা হওয়া যায়, শুধু আপনার এক পা আগানো বাকি। নিজের একটা জগত হয়ে যায়, কত মানুষ আপন হয়ে যায়। জীবনের একটা অংশ হয়ে যায়। আইডিয়া গুলো কাজে লাগান। এখনি সময়।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা অনলাইন বিজনেস নিয়ে ? কোন আউটলেট করার ইচ্ছা আছে ?

বড় হতে চাই একটু একটু করে। অনলাইনে সুপার শপ করতে চাই। সব থাকবে হাতের নাগালে। আর আউটলেট এর জন্য টাকা জমাচ্ছি।যে কোন সময় শুরু করে দিবো চকলেটের একটা দোকান ।

চকোলেট ওয়ার্ল্ডের ফেসবুক লিংকঃ https://www.facebook.com/chocolateworldsp/?__mref=message_bubble

 

Advertisements