বিদেশী পোশাক নিয়ে কাজ শুরু করলেও, অপরাধবোধ থেকে দেশীয় প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ শুরু করা। তাতে পেল ভীষণ সাড়া ! অনলাইন সুপার শপ HUR পেল ৩ মাসেই প্রায় ২৫০০০ লাইক। অস্ট্রেলিয়া, লন্ডন, সিঙ্গাপুর থেকে ইতিমধ্যে পেয়েছে কাজের অর্ডার। কিন্তু এই পথ চলা কোনভাবেই মসৃণ ছিল না। হাজার বাঁধার সঙ্গে লড়াই করতে করতে HUR হাঁটি হাঁটি পা করে এগিয়ে যাচ্ছে। নুসরাত লোপা আপুর সঙ্গে ফেমিনিজমবাংলার আড্ডায় উঠে এলো ছোট্ট HUR এর সেই অসামান্য সংগ্রামের গল্প।

উদ্যোক্তা হবার ইচ্ছা মাথাচাড়া দিল কবে থেকে?

ক্যারিয়ারে কিন্তু এদিকে ঝোঁক ছিল না। ইচ্ছে ছিল কর্পোরেট জব করব, ভাল কোম্পানি , ব্র্যান্ডের কোম্পানি তে জব করব। জিপিতে ( গ্রামীণফোন) জয়েন করি। তাদের চাকরির জন্য নেওয়া পরীক্ষায় ৩৫০ র মধ্যে হয়েছিলাম ১৬। কিন্তু ব্যাক্তিগত অনেক কারণে ৩০ দিনের মাথায় ছেড়ে দেই জবটা । জিপির জব ছেড়ে দেবার পরে ৭ জায়গায় ইন্টারভিউ দেই, কিন্তু কোনটাই আসলে ক্লিক করছিল না। আসলে ছোটবেলায় ডাক্তার হবার স্বপ্ন ছিল, একটু বড় হয়ে ঝোঁক এসেছিল ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হওয়া। কিন্তু কিচ্ছু হয়েও হয় নি। এই হল না হল না করতে করতে একসময় প্রচণ্ড ডিপ্রেসড হয়ে পড়ি, আমাকে দিয়ে আসলে কিচ্ছু হবে না। তখনও একটা চিন্তা মাথায় খেলত, মানুষের জন্য এমন কি কাজ করা যায়, যেখানে আমাকে অনেক মানুষ চিনবে। এই ভাবনাতেই উদ্যোক্তা হওয়া, হুট করেই হওয়া, বিজনেস করার কোন প্ল্যান নিয়ে মাঠে নামিনি।

কিন্তু পোশাক নিয়েই বা অনলাইন বিজনেস কেন ?

আসলে দেশীয় কাপড় করা নিয়ে একটা ইচ্ছা সবসময়ই ছিল। নিজের কাপড়চোপড় আমি নিজেই বানাতাম। তো তখন এটাকে নিয়ে বিজনেস করার কথা ভাবলাম। শুরু থেকেই প্রচুর সাড়া পেয়েছি,৩ মাসেই আমার পেইজে লাইক প্রায় ২৫০০০।

HUR

আমার অনলাইন শপের নাম। HUR (হুর) মানে তো পরি। মেয়েদেরকে আমার পরীর মত সুন্দর মনে হয়, ওরা সবসময় পরীর মত সুন্দর করে সেজেগুজে থাকবে, সুন্দর হবে, এই চিন্তা থেকেই আসলে হুর নামটা দেওয়া।

12270475_1050015455043201_1845499730_n

দেশীয় কাপড় নিয়ে অনলাইন বিজনেসের ইচ্ছাটা……

একটা কথা কি দেশীয় কাপড় নিয়ে যারাই বিজনেস করছে তারা সবাই ভীষণ ভীষণ স্ট্রাগল করছে । শুরুতে বিদেশী কাপড়ই ছিল। কিন্তু একটা সময় নিজের কাছে গিলটি ফিল হয়, আমার ফ্যামিলি তে আমার চাচারা মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, বোম মেরে আমার দাদার বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছিল পাকিরা, সেই আমিই তাদেরকে প্যাট্রিয়ট করছি তাদের? কি করছি আমি ? এই অপরাধবোধ থেকেই দেশীয় প্রডাক্ট নিয়ে কাজ করা শুরু করলাম, বিদেশী প্রোডাক্ট নিয়ে আর একদমই কাজ করি না।

শুরুর দিকে পুঁজি কেমন ছিল ?

২০,০০০ দিয়ে শুরু করি আমি।

পড়াশুনার কথা একটু শুনি, কোথা থেকে এসএসসি, এইচএসসি, গ্রাজুয়েশন………।

জন্ম আমার ফেনীতেই। তাই স্কুল ও ফেনীতে ছিল। লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি। তারপর ইডেন থেকে সাইকোলজিতে অনার্স মাস্টার্স। এর পাশাপাশি BITM BASIS থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের উপর কোর্স করেছি।

ওপসস! সাইক্রিস্ট না হয়ে……

খুবই ইচ্ছা ছিল ! হল না , আর কি ?

এই যে জব ছেড়েছুড়ে উদ্যোক্তা, পরিবার কি সহজেই মেনে নিল ?

আমি সত্যি কথা বলি, প্রথম দিকে কোন সাপোর্টই আমি পাই না। আসলে ব্যাপারটা কি সাপোর্ট হতে হয় অনেকটা উৎসাহ যোগানোর মত, আজকে সাপোর্ট দিলাম, কাল দিলাম না, নেগেটিভ এপ্রোচ করলাম সেটা কোনভাবেই সাপোর্ট বলে না।

12282794_1050015501709863_43398161_n       12273095_1050015408376539_1965728880_n

সব একাই করেছিলেন ?

সব একা। ডিজাইন করা, ঘুরে ঘুরে জিনিষ কেনা, কাপড় কাটা, কারিগরের কাছে বানান, প্যাকিং করা, কুরিয়ার করা, ছবি তুলে পেইজ চালান – কোন সহযোগিতাই পাইনি কারও কাছে থেকে, পুরো একা নিজ হাতে চালিয়েছি।

একা এত কাজ !

শুধু কি তাই, আমি তো measurement নিয়ে জামা বানাই। ১০০ জন মানুষের ১০০ রকম বডির মাপ, সব নোট করা, টেইলারকে বুঝিয়ে দেওয়া সব এক হাতে।

12283048_1050015441709869_286736781_n

এত পরিশ্রমের ফল কি হাতেনাতে পাওয়া যাচ্ছে ?

ফেসবুক সরকার বন্ধ করে দিয়েছে। ভিপিএন দিয়ে অনেকে ঢুকেছে। সবাই বলছে খুব মিস করছি আপনাকে, আপনার পোস্ট, আপনার দেওয়া জামার ছবি সব। এটাই তো বড় পাওয়া।

তার মানে কাস্টমারদের সঙ্গে ক্ল্যাশের কোন জায়গাই নেই।

একেবারে নেই তা না। আমার চাইতে বয়সে ছোট একটা মেয়ের কথা বলি, ফার্স্ট ইয়ার ভার্সিটিতে পড়ে! তো সে আমাকে জিজ্ঞেস করে “আপু কোথা থেকে কাপড় আনেন?”। এটা স্বাভাবিক বিষয়, বিজনেস ইথিক্সই বলে সেটা, আমি কোথা থেকে কাপড় কিনে আনি, সেইজিনিস বললে আমার বিজনেসের কোন অর্থই থাকে না। আমি সেটাই তাকে বুঝালাম, সে আমাকে বিশাল মেসেজ দিল, “আপনার এত দেমাগ ক্যান, নিজেকে কি মনে করেন? আপনাকে তো পিছনে অনেকে অনেক খারাপ কথা বলে , সমালোচনা করে” । আবার এরকম মেসেজও পেয়েছি “আপনি সবাইকে ঠকাচ্ছেন, সেম প্রোডাক্ট অন্য পেইজে কম দামে সেল করছে, নিউমার্কেটে কম দামে পাওয়া যায়, আপনি কেন এত বেশী রাখছেন?

12283323_1050015495043197_424888264_n   12270102_1050015518376528_1703283335_n   12244107_1050015805043166_1808045672_n

জেদ হয় না, মন খারাপ হয় না?

আরে! লাস্ট কয়েকটা দিন কেবল যুদ্ধ করে এসেছি। একটা কমেন্ট , একটা মেসেজের রিপ্লাই আমি খুব ঠাণ্ডা মাথায় দেই। আমি খুব সহনশীল থাকি। বলি” দুটো শাড়ি সেম কালার সেম জমিন, একটার দাম ৫০০০ টাকা, আরেকটা ৫০০? এই পার্থক্য কেন?” তারা নিজেরাই বলে “ একটার কুয়ালিটি ভাল, আরেকটার খারাপ”। দ্যাটস ফ্যাক্ট! যেটা অন্য পেইজে বা নিউমার্কেটে কম দামে পাচ্ছেন, সেটা ভাল না! মাঝে মাঝে ভাবি মেয়ে হয়েছি বলেই কি এত যুদ্ধ করে যেতে হবে ?

কাস্টমারদের ব্যান করেন না পেইজ থেকে এসব বললে ?

হ্যাঁ ব্যান করে দেই। আর শুধু যে কাস্টমার তাই না ! অনেক প্রতিযোগী আছেন এই বাজারে। ৩ মাসে ২৫০০০ লাইক অনেকের চোখে পড়ে। ফেইক আইডি খুলে তাদের অনেকেই বাজে কথা বলে।

12282806_1050015321709881_15179467_n   6   12273026_1050015351709878_1421248756_n

আপনি নিজে তো প্রতিযোগিতার এই নোংরামির মধ্যে……

আমি বরং যারা পেইজ খুলে তাঁদের অনেককে মেসেজ দেই “ তোমার এই জামাটা ভাল লেগেছে, এই শাড়িটা খুব সুন্দর, পড়ব”। আমার শাড়িও ওরা দেখে পছন্দ করে। আমি ওদেরটা পড়ি, ওরা আমারটা। অনেকের সঙ্গেই খুব আন্তরিক সম্পর্ক আছে আমার।

কারিগর আছে নিজের ?

হ্যাঁ আমার দু তিনজন কারিগর আছেন, তারা আমার জামা কাপড়ই বানাতেন। এখন উনাদের দিয়েই কাজ করাই।

12248855_1050015545043192_1562161933_n অন্য অনলাইন শপের চাইতে HUR এর স্বকীয়তা ?

প্রথম কথা ভীষণ রিজনেবল প্রাইজে দেই, আর আমার নিজের কিছু ডিজাইন আছে। এর মধ্যে অনেকগুলা ইনস্ট্যান্ট করা। এই ডিজাইনগুলা তুমি আর পাবা না। জামার সাথে যে ওড়না দেই তা এভেইলেবল, কিন্তু স্টিচ আমার ডিজাইন করা সম্পূর্ণ।

একজন নারী উদ্যোক্তা হিসেবে একটু পিছনে ফিরে তাকাই!

নারী উদ্যোক্তা শুধু না, তুমি জব কর, বিজনেস কর যাই কর, তোমাকে অনেস্ট থাকতে হবে। আর দাঁতে দাঁত কামড়ে পড়ে থাকতে হবে। শুরু করলে আর স্টপ করা চলবে না, যত বাঁধাই আসুক। একসময়ে যে বাঁধা এসেছে, সেই বাঁধাই ভবিষ্যতে পথ চেনায়, এপ্রিসিয়েট করে।

pছোট্ট HUR নিয়ে বড় স্বপ্ন

স্বপ্ন বড়ই আসলে। দাঁত উঠেছে আমার বাচ্চাটার, এখন ভাত খেতে শিখছে। ধীরে ধীরে এতটা দাঁড়িয়ে যাবে, আর পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না। আড়ং বা আরণ্যকের পাশে কোণায় দাঁড়াবে আমার HUR। অস্ট্রেলিয়া , লন্ডনে, সিঙ্গাপুরে এখনই বড় ধরণের অর্ডার পাচ্ছি। এখন পর্যন্ত কোন লস নাই। ছোটখাট চিপস খাওয়াও ছেড়ে দিয়েছি, কাজের জন্য টাকা কমতি যেন না পড়ে! তাই স্বপ্ন দেখছি বুক ভরে, একদিন সম্পূর্ণ আমার ডিজাইনের শাড়ি আসবে HUR এ, আমার করা কালার কম্বিবেশন থাকবে , শুধু আমার কাছেই সেই প্রোডাক্ট পাওয়া যাবে আর কোথাও না! HUR একদিন একদম ইউনিক হবে!

HUR এর ফেসবুকের লিংকঃ https://www.facebook.com/HURnusrat/?fref=ts

Advertisements